“জলবায়ু পরিবর্তন নিয়ে শিশুরা কথা বলবে, সোচ্চার হবে”- (তথ্যসূত্র: প্রথম অলো, ০৩/০৮/২০২১)

“জলবায়ু পরিবর্তন নিয়ে শিশুরা কথা বলবে, সোচ্চার হবে”- (তথ্যসূত্র: প্রথম অলো, ০৩/০৮/২০২১)

(শিশুদের নিয়ে ‘আর্টিভিজম: আমার চোখে জলবায়ু পরিবর্তন’ শীর্ষক চিত্রাঙ্কন ও আলোকচিত্র প্রতিযোগিতা হচ্ছে। প্রতিযোগিতার বিষয়ে বিস্তারিত জানা যাবে কিশোর আলো ও সেভ দ্য চিলড্রেন ইন বাংলাদেশের ফেসবুক পেজে।)

আর্ট একটি শক্তিশালী মাধ্যম। এই আর্টের মাধ্যমে শিশুরা যা দেখবে, তা-ই তুলে ধরবে। জলবায়ু পরিবর্তনের বিষয় নিয়ে শিশুরা কথা বলবে, চর্চা করবে। বন্ধুমহলে আওয়াজ তুলবে। তারা সোচ্চার হবে এবং বিশ্বনেতাদের প্রতি প্রশ্ন তুলবে। গতকাল সোমবার কিশোর আলো ও সেভ দ্য চিলড্রেন ইন বাংলাদেশের উদ্যোগে ‘আর্টিভিজম: আমার চোখে জলবায়ু পরিবর্তন’ শীর্ষক প্রতিযোগিতার উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে সেভ দ্য চিলড্রেনের পরিচালক (প্রোগ্রাম কোয়ালিটি অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট) রিফাত বিন সাত্তার এসব কথা বলেন। গতকাল ভার্চ্যুয়ালি এ প্রতিযোগিতার উদ্বোধনী অনুষ্ঠান হয়।

আয়োজকেরা জানিয়েছে, চিত্রাঙ্কন ও আলোকচিত্র নিয়ে এ প্রতিযোগিতা হবে। অনূর্ধ্ব–১৩ বছর বয়সীরা ‘ক’ গ্রুপ এবং ১৩ থেকে অনূর্ধ্ব-১৮ বছর বয়সীরা ‘খ’ গ্রুপের প্রতিযোগী বলে বিবেচিত হবে। ২ থেকে ১৪ আগস্ট পর্যন্ত প্রতিযোগিতায় অংশ নেওয়া যাবে। প্রতিযোগিতার বিষয়ে বিস্তারিত জানা যাবে কিশোর আলো ও সেভ দ্য চিলড্রেন ইন বাংলাদেশের ফেসবুক পেজে।

শিশুদের জীবনমান উন্নয়ন ও অধিকার নিয়ে একসঙ্গে কাজ করতে সেভ দ্য চিলড্রেন ইন বাংলাদেশ ও মিডিয়াস্টার লিমিটেড (প্রথম আলো) সমঝোতা স্মারকে সই করেছে। এই প্রতিযোগিতা তারই একটি অংশ বলে জানান প্রথম আলোর সহযোগী সম্পাদক ও কিশোর আলো সম্পাদক আনিসুল হক। তিনি বলেন, জলবায়ু পরিবর্তনের কারণে অনেক দেশের পাশাপাশি বাংলাদেশও ভুগছে। ইউরোপের দেশগুলোতে তার প্রভাব দেখা যাচ্ছে। সে জন্যই এ প্রতিযোগিতা। নিজে সচেতন হতে হবে। জলবায়ু পরিবর্তনের কথা তুলে ধরতে হবে। শিশু–কিশোরদের উদ্দেশে তিনি বলেন, ‘তোমরা যা বোঝো এঁকে ফেলো, ছবি তুলে ফেলো। পুরস্কার বা জয়লাভই মুখ্য না। শিশুরা ভাববে ও ভাবাবে। বাংলাদেশকে প্রতিনিধিত্ব করবে।’

সেভ দ্য চিলড্রেন বাংলাদেশের হিউম্যানিটেরিয়ান পরিচালক মোস্তাক হোসেন বলেন, এ প্রতিযোগিতার মাধ্যমে জলবায়ু নিয়ে শিশুরা কী বার্তা দিতে চায়, তা উঠে আসবে। এটা একটা নতুন আইডিয়া। শিশুরা নিজেদের ভাবনাকে তুলে ধরবে। নীতি নির্ধারণেও হয়তো তা একসময় প্রভাব ফেলবে। শিশুরাও অনুপ্রাণিত হবে।

যে জিনিস বড়দের বোধগম্য নয়, শিশুরা তা অনুভব করতে পারে, বড়দের চেয়ে ছোটরা অনেক ভালো কিছু তুলে ধরতে পারে এবং বুঝতে পারে।

এই প্রতিযোগিতাটা সময়ের সঙ্গে যায়। জলবায়ু পরিবর্তন শুধু বড়দেরই বিষয় নয়। আর শিশুরা এখন থেকেই বড় বড় বিষয় নিয়ে ভাবতে থাকলে তা ভবিষ্যতের জন্যই ভালো হবে।

সেভ দ্য চিলড্রেন এশিয়ার রিজিওনাল অ্যাডভোকেসি অ্যান্ড ক্যাম্পেইনের সিনিয়র ম্যানেজার তাসকিন রহমান বলেন, জলবায়ু পরিবর্তনের ভুক্তভোগী শিশুরাও।

প্রতিযোগিতার বিষয়ে বলেন, এটি বিশ্বের নয়টি দেশে অনুষ্ঠিত হবে। সেখান থেকে নির্বাচিতদের আর্টগুলো নিয়ে ইতালিতে উপস্থাপন করা হবে। সেখানে বিশ্বনেতাদের সামনে জলবায়ু পরিবর্তন বিষয়ে শিশুদের ভাবনাগুলো তুলে ধরা হবে। শিশু প্রতিনিধি আলোকচিত্রী সাফা জেরিন সুকন্যা বলেন, এ প্রতিযোগিতায় অংশ নেওয়ার মাধ্যমে ভাবনার জায়গা আরও বড় হবে। আরেক শিশু প্রতিনিধি আঁকিয়ে মোহাইমিন সুলতানা মিভা বলেন, জলবায়ু পরিবর্তনের সমস্যা এবং কী কী করা যাবে, তা প্রতিযোগিতার মাধ্যমে প্রকাশ করে যাবে। অনুষ্ঠানটি সঞ্চালনা করেন প্রথম আলোর সহকারী সম্পাদক ফিরোজ চৌধুরী।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *